Breaking News

কুমিল্লার আদালতে খালেদার জামিন নামঞ্জুর পেট্রোল বোমায় বাসযাত্রী হত্যা মামলা ||RIGHTBD


কুমিল্লায় যাত্রীবাহী নৈশকোচে দুর্বৃত্তদের পেট্রল বোমা হামলায় ৮ জন যাত্রী নিহতের মামলায় বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করেছে আদালত।
 গতকাল মঙ্গলবার কুমিল্লার ৫নং আমলি আদালতের বিচারক ও সিনিয়ির জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট মোস্তাইন বিল্লাহ এ আদেশ দেন। এর আগে গত রবিবার একই আদালতের বিচারক ওই মামলায় বেগম খালেদা জিয়াকে গ্রেফতার দেখান। আদালত সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।
 এ দিকে, জামিন আবেদনের শুনানি শেষে খালেদা জিয়ার পক্ষের আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া জানান, সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে খালেদা জিয়াকে এ মামলায় আসামি করা হয়েছে।

 জানা যায়, জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট মামলায় ঢাকার বিশেষ জজ আদালত গত ৮ ফেব্রুয়ারি বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে ৫ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেয়। এ মামলায় ওইদিন থেকে তিনি কারাগারে আছেন। এদিকে ২০১৫ সালের ৩ ফেব্রুয়ারি ২০ দলীয় জোটের টানা অবরোধ চলাকালে ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের কুমিল্লার চৌদ্দগ্রামের জগমোহনপুরে একটি নৈশকোচে দুর্বৃত্তদের নিক্ষিপ্ত পেট্রল বোমায় ৮ জন যাত্রী দগ্ধ হয়ে মারা যান। এ মামলায় গত ১২ মার্চ গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে কুমিল্লার ৫নং আমলি আদালতের বিচারক বেগম খালেদা জিয়াকে গত ২৮ মার্চ আদালতে হাজিরা পরোয়ানা (পিডব্লিউ) ইস্যু করেন। একইদিন বেগম খালেদা জিয়ার হাজিরা পরোয়ানা প্রত্যাহার ও জামিনের আবেদন দাখিল করেছিলেন তার আইনজীবীরা। কিন্তু ওই তারিখে (২৮ মার্চ) খালেদা জিয়াকে হাজির না করায় আদালত কারা কর্তৃপক্ষকে কারণ দর্শানোর নির্দেশ দিয়ে গত রবিবার (৮ এপ্রিল) মামলার পরবর্তী শুনানির তারিখ ধার্য করেন। ওইদিন আদালত খালেদা জিয়াকে এ মামলায় গ্রেফতার দেখান এবং গতকাল মঙ্গলবার (১০ এপ্রিল) বেগম খালেদা জিয়ার জামিন আবেদনের শুনানির দিন ধার্য করেন। গতকাল ওই আবেদনের শুনানির পর আদালত বেগম খালেদা জিয়ার জামিনের আবেদন নামঞ্জুর করে আদেশ দেন।

খালেদা জিয়ার আইনজীবী অ্যাডভোকেট কাইমুল হক রিংকু জানান, এ মামলার এফআইআরে বেগম খালেদা জিয়ার নাম ছিল না, সাক্ষীদেরও কেউ তার নাম বলেননি। এছাড়া এ মামলার অন্যান্য আসামিরাও জামিনে রয়েছেন। রাজনৈতিকভাবে হয়রানির করার জন্য তাকে এ মামলার চার্জশিটে (অভিযোগপত্র) আসামির নাম তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। ঢাকা থেকে আসা বেগম খালেদা জিয়ার অপর আইনজীবী অ্যাডভোকেট সানাউল্লাহ মিয়া জামিন শুনানি শেষে সাংবাদিকদের জানান, বিএনপি জ্বালাও-পোড়াও এবং হত্যার রাজনীতিতে বিশ্বাস করে না। সম্পূর্ণ রাজনৈতিক প্রতিহিংসার কারণে তাকে এ মামলার চার্জশিটে আসামি করা হয়েছে। তিনি দেশের তিনবারের প্রধানমন্ত্রী ছিলেন। এছাড়া তিনি অসুস্থ ও বয়স্ক। তাই আমরা তার (খালেদা জিয়া) জামিন চেয়েছিলাম, কিন্তু আদালত জামিন দেয়নি। আইনগত প্রক্রিয়া অনুসরণ করে পরবর্তীতে জেলা ও দায়রা জজ আদালতে জামিন চাইব। আশা করি, সেখানে আমরা ন্যায় বিচার পাবো

No comments