Breaking News

কচুয়ায় গৃহবধুর রহস্য জনক মৃত্যু! || RIGHTBD

কচুয়া উপজেলার গোহট উত্তর ইউনিয়নের পাক-নূরপুর গ্রামের মাইজ পাড়া বাড়ীর গৃহবধু  আকলিমা (২৩) মৃত্যু নিয়ে রহস্য দেখা দিয়েছে।   সরজমিন রিপোর্ট আজ রবিবার ভোর ৫টার দিকে আকলিমার স্বামী পরিবারের লোকজন গৃহবধুর পিতা একই উপজেলার আশ্রাফপুর ইউনিয়নের পনশাহী গ্রামের আদম আলী সওদাগর বাড়ীর আজগর আলীকে খবর দেয় যে, তার মেয়ে পুকুরের ঘাটলায় মারাগেছে।

তিনি লোকজন নিয়ে মেয়ের বাড়ীতে গিয়ে তার মৃত দেহ দেখতে পেয়ে কচুয়া থানা পুলিশকে অবগত করে । পুলিশ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে এসে শশুরের ঘরের সামনের আঙ্গীনা থেকে আকলিমার লাশ উদ্বার সহ শশুর সিরাজুল ইসলাম ও দেবর ফজলে রাব্বি (১৮) কে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে যায়।

 এ সময় আকলিমার স্বামী কাউছার (২৬) ও তার ৪ বছরের শিশু কন্যা আনিকাকে নিয়ে পালিয়ে যায়। আকলিমার পিতা ও বড় বোন হাজেরা বেগম আহাজারি করে সিএনএন বিডি ২৪.কমকে জানান, তারা আকলিমাকে হত্যা করে পুকুরের ঘাটলায় নিয়ে রেখেছে। অতিতে তার স্বামী, শশুর, শাশুড়ী ও দেবর বহু নির্যাতন করেছে ।

 তার সুখ শান্তীর জন্য সম্প্রতি বেড়া সহ রঙ্গিন দৌচালা চাউনির একটি বসত ঘর করে দেয়। সে পুকুরের ঘাটলায় গিয়ে মারা যাবার বিষয়টি কোনো অবস্থাতেই মেনে নিতে পারছেনা । বর্তমানে সে ৭ মাসের গর্ভবতী থাকায় বসত ঘরের সাথে বাথ রুম এবং গোসল খানা করে দেয় । তার স্বামী পর-নারী লোভী।

 গত ৪-৫ দিন আগেও এক পর-নারী বাড়ীতে নিয়ে আসলে আকলিমার সাথে বাক-বিতন্ডা হয়। তারা আরো জানান, প্রায় ১১ মাস পূর্বে আকলিমাকে হত্যার চেষ্টা করছিল। তখন এ ঘটনায় আকলিমার পিতা কচুয়া থানায় একটি অভিযোগ দায়ের করলে থানার গোল ঘরে একটি শালিস বৈঠকের আয়োজন করে।

 কিন্তু এ শালিস বৈঠকে স্বামী শশুরের কেউ হাজির হয়নি । পুলিশ জানান, আকলিমার লাশ পোষ্ট মর্টেমের জন্য চাঁদপুর মর্গে প্ররন কারা হয়েছে এবং ৫৪ ধারায় আকলিমার শশুর সিরাজুল ইসলাম ও দেবর ফজলে রাব্বি কে চাঁদপুর কোর্টে প্রেরন করা হবে । পুলিশ আরো জানান এ ব্যাপারে কচুয়া থানায় একটি অপমৃত্যু মামলা হয়েছে। মামলা নং- ১ তারিখ ২৪/০৬/২০১৮ইং। পোষ্ট  মর্টেমের রিপোর্ট আসলে মৃত্যুর মূল রহস্য জানাযাবে বলেও পুলিশ জানান।

No comments