Breaking News

২১ জুলাই স্মরণকালের বড় সমাবেশ করবে আওয়ামী লীগ || RIGHTBD


দলীয় প্রধান ও প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার গণসংবর্ধনায় স্মরণকালের বৃহৎ জনসমাগম ঘটাতে চায় আওয়ামী লীগ। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের বছরে, আগামী ২১ জুলাই রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের এই সংর্বধনায় বড় ধরনের শোডাউন করবে ক্ষমতাসীনরা। অনুষ্ঠান সফল করতে ইতিমধ্যে নেয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। দলের সম্পাদকমন্ডলীর বৈঠক ছাড়াও অঙ্গ-সহযোগী সংগঠনের নেতা এবং ঢাকা ও এর আশ-পাশের জেলার নেতা এবং দলীয় এমপিদের নিয়ে বৈঠক করেছে দলটি। ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণসহ বিভিন্ন থানা-ওয়ার্ডগুলোও করেছে আলাদা আলাদা প্রস্তুতি সভা।
এ বিষয়ে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহণ ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেন, এই গণসংর্বধনা অনুষ্ঠানটি সফল করতে আমরা ঢাকার পার্শ্ববর্তী জেলা, ঢাকা মহানগর এবং আমাদের সহযোগী সংগঠনগুলোর সঙ্গে আলোচনা করেছি। সবাই প্রস্তুতিমূলক সভা করেছি। আমরা আশা করছি- স্মরণকালের স্মরণীয় একটা সমাবেশ আমরা করতে পারব। সেভাবেই আমরা সাজিয়েছি। ২৫ হাজার আসনের ব্যবস্থা করা হবে। আমাদের কর্মকাণ্ড এগিয়ে চলছে। বিকেল ৩টার দিকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান শুরু হবে। আধা ঘণ্টার একটা সাংস্কৃতিক প্রোগ্রাম সেখানে থাকবে। আমাদের নেত্রীকে আমরা একটা সুশৃঙ্খল গণসংবর্ধনা উপহার দিতে চাই।
দলীয় সূত্র জানিয়েছে, সংবর্ধনায় মুক্তিযুদ্ধের চেতনা ধারণকারী সব শ্রেণি-পেশার মানুষের উপস্থিতি নিশ্চিত করতে চায় ক্ষমতাসীনরা। এছাড়া ঢাকার পার্শ্ববর্তী মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, নারায়ণগঞ্জ, সাভার, আশুলিয়া ও মুন্সীগঞ্জ জেলার বিপুলসংখ্যক নেতাকর্মী যোগ দেবে। বাস, ট্রাক ও রেলপথে নেতাকর্মী ঢাকায় এসে বর্ণিল মিছিল সহকারে সোহরাওয়ার্দী ময়দানে সমবেত হবে। ঢাকা ও ঢাকার বাইরের এমপি ছাড়াও সম্ভাব্য মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও মিছিল সহকারে সমাবেশে যোগ দেবে। সোহরাওয়ার্দী উদ্যানসহ আশপাশের এলাকায় লাগানো হবে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিসহ সরকারের উন্নয়ন ও অর্জনের তথ্যসম্বলিত পোস্টার, ফেস্টুন ও ব্যানার।
সোমবার বিকেলে ১৯ বঙ্গবন্ধু এভিনিউ ২য় তলায় প্রধানমন্ত্রীর গণসংবর্ধনা সফলে প্রস্তুতি সভা করেছে করেছে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগ। এতে প্রধান অতিথি ছিলেন আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য ও স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম। এর আগে গত ৮ জুলাই আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির নেতারা সহযোগী সংগঠনের কেন্দ্রীয় সভাপতি-সাধারণ সম্পাদক, ঢাকা জেলা, ঢাকা মহানগর উত্তর ও দক্ষিণ, মানিকগঞ্জ, গাজীপুর, গাজীপুর মহানগর, নারায়ণগঞ্জ, নারায়ণগঞ্জ মহানগর ও মুন্সিগঞ্জের সভাপতি-সাধারণ সম্পাদকসহ আশপাশের জেলা-মহানগরের অন্তর্গত দলীয় এমপিদের নিয়ে যৌথসভা করেছেন। সভায় সহযোগী সংগঠনের নেতাদের দায়িত্ব বুঝিয়ে দেয়া হয়। এরপর স্বেচ্ছাসেবকলীগ, ছাত্রলীগ, যুব মহিলা লীগসহ কয়েকটি সংগঠন নিজেদের প্রস্তুতি সভা করে।
এদিকে সংবর্ধনা অনুষ্ঠান ঘিরে ঢাকা এর আশপাশের দলীয় মনোনয়ন প্রত্যাশীরাও নানা প্রস্ততি নিচ্ছে। নির্বাচনী বছরের শেষ মুহূর্তের এই সমাবশে নিজেদের শক্তি ও জনসমর্থন দেখাতে তারাও নিচ্ছেন তারা পরিকল্পনা। সংবর্ধনা ঘিরে ব্যতিক্রমী প্রস্তুতি নিয়েছেন ডেমরা থানা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মশিউর রহমান মোল্লা সজল। জয় বাংলা স্লোগান সম্মলিত প্রায় দুই হাজার ছোট-বড় নৌকা আর নেতাকর্মীদের হাতে হাতে বর্তমান সরকারের উন্নয়নমূল চিত্র তুলে ধরে বিভিন্ন ফ্যাস্টুন-ব্যানার এবং দুই শতাধিক প্রিকআপ ভ্যান সাজিয়ে সংবর্ধনায় যোগ দেবেন বলে জানা গেছে।
নারায়নগঞ্জ-৩ আসনের সাবেক এমপি আব্দুল্লাহ আল কায়সার হাসনাত সোনারগাঁও থেকে ১০ হাজার নেতাকর্মী নিয়ে যোগ দেবে অনুষ্ঠানে। প্রতিদিনই সোনারগাঁও নির্বাচনী এলাকার আওয়ামী লীগ-যুবলীগ, সেচ্ছাসেবক লীগ, কৃষকলীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীদের নিয়ে বিশেষ কর্মীসভা করছেন। ব্যতিক্রম কিছু করে প্রধানমন্ত্রীর সু-নজরে আসতে চান চাদপুর-৩ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী রেদওয়ান খান বোরহান।
তিনি বলেন, ইতোমধ্যে চাদপুরে আমরা বিভিন্ন ইউনিটের সঙ্গে যৌথসভা সম্পন্ন করেছি। নেত্রীকে সম্মান ও সংবর্ধনাকে সফল করতে নেতাকর্মীরা দুপুরের মধ্যে সোহরাওয়ার্দী মাঠে সমবেত হবে।
একইভাবে কিশোরগঞ্জ-২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী ডক্টর জায়েদ মোহাম্মদ হাবিবুল্লাহ হাতি-ঘোড়ার সঙ্গে নৌকা নিয়ে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থেকে উপস্থিত হবেন সোহরাওয়াদী উদ্যানে। ঢাকা-৬ আসনের আরেক মনোনয়ন প্রত্যাশী ওয়ারী থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি চৌধুরী আশিকুর রহমান লাভলু বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে দলীয় নেতাকর্মীদের নিয়ে সোহরাওয়াদী উদ্যানের চারপাশে শোডাউন করবেন বলে জানা গেছে। মেহেরপুর-২ আসনের মনোনয়ন প্রত্যাশী এ কে এম কামরুজ্জামানসহ আসন্ন নির্বাচনে মনোনয়ন প্রত্যাশীরা নিজ নিজ উদ্যোগে সারাদেশ থেকে ভিন্ন ভিন্ন আয়োজন নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সংবর্ধনা সফল করতে সোহরাওয়াদী উদ্যানে হাজির হবেন।
এ বিষয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. শাহে আলম মুরাদ বলেন, ঢাকা মহানগর উত্তর-দক্ষিণসহ আশপাশের প্রতিটি ইউনিটের নেতাকর্মীদের অংশগ্রহণ থাকবে চোখে পড়ার মতো। তিনি বলেন, ২১ জুলাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে দেয়া গণসংবর্ধনায় স্মরণকালের সর্ববৃহৎ একটা সমাবেশে রূপ দেয়া হবে।
প্রসঙ্গত, মহাকাশে বঙ্গবন্ধু-১ স্যাটেলাইটের সফল উৎক্ষেপণ, বাংলাদেশের স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণ এবং অস্ট্রেলিয়ায় গ্লোবাল উইমেনস লিডারশিপ অ্যাওয়ার্ড এবং সর্বশেষ ভারতের কাজী নজরুল ইসলাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডিলিট ডিগ্রি অর্জনসহ শেখ হাসিনার নেতৃত্বাধীন আওয়ামী লীগ সরকারের আমলের উন্নয়ন-অর্জনে অসামান্য অবদান রাখায় এই সংবর্ধনার আয়োজন করছে আওয়ামী লীগ।

No comments