Breaking News

দুনীির্তর দায়ে নওয়াজের ১০ বছর কারাদÐ, মেয়ের ৭ || RIGHTBD


দুনীির্তর দায়ে পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফকে ১০ বছরের কারাদÐ দিয়েছে আদালত। একই সঙ্গে তার মেয়ে মরিয়ম নওয়াজকে সাত বছর ও মরিয়মের স্বামী ক্যাপ্টেন সফদারকে এক বছরের কারাদÐ দেয়া হয়েছে। ডন নিউজের খবরে বলা হয়, পাকিস্তানের অ্যাকাউন্টিবিলিটি কোটর্ শুক্রবার এ রায় ঘোষণা করেন। কারাদÐাদেশের পাশাপাশি নওয়াজকে ৮০ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ড ও মরিয়মকে ২০ লাখ ব্রিটিশ পাউন্ড জরিমানা করা হয়েছে।


নওয়াজ শরিফ ও তঁার মেয়ে মরিয়ম এখন লন্ডনে অবস্থান করছেন। নওয়াজের স্ত্রী কুলসুম নওয়াজ ক্যানসারে আক্রান্ত হয়ে লন্ডনে চিকিৎসাধীন। এ কারণে নওয়াজ ও মরিয়ম এই রায় অন্তত সাত দিন পিছিয়ে দেয়ার জন্য আদালতের কাছে আবেদন করেছিলেন। কিন্তু আদালত শুক্রবারই রায় ঘোষণা করেন।

সংবাদমাধ্যম বিবিসির খবরে বলা হয়, লন্ডনে চারটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট কেনাকে কেন্দ্র করে নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে দুনীির্তর অভিযোগ আনা হয়। এই মামলার রায় গতকাল সকালেই ঘোষণা করার কথা ছিল। কিন্তু আদালত কয়েক দফা পিছিয়ে বিকালের পর রায় ঘোষণা করেন। নওয়াজ শরিফ বরাবরই দুনীির্তর এই অভিযোগকে রাজনৈতিক উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলে দাবি করে আসছেন।

নব্বইয়ের দশকে লন্ডনে পাকর্ লেনের অ্যাভেনফিল্ড হাউসে চারটি বিলাসবহুল ফ্ল্যাট কিনে নওয়াজের পরিবার। পাকিস্তানের জাতীয় জবাবদিহি সংস্থা ন্যাশনাল অ্যাকাউন্টিবিলিটি ব্যুরোর (এনএবি) কৌঁসুলি আদালতকে বলেন, নওয়াজ এই ফ্ল্যাটগুলি কেনার অথের্র বৈধ আয় দেখাতে পারেননি। যদিও নওয়াজের পরিবারের দাবি, বৈধ আয়ের অথর্ দিয়ে এসব ফ্ল্যাট কিনেছেন তারা। তবে এনএবির জিজ্ঞাসাবাদে এসব ফ্ল্যাট কেনার বিষয়ে নওয়াজের পরিবারের সদস্যরা ভিন্ন রকম তথ্য দেন।

২০১৫ সালে পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে নাম আসে নওয়াজের। ওই সময় জানা যায়, বেশ কয়েকটি অফশোর কোম্পানির সঙ্গে নওয়াজ শরিফের ছেলেমেয়েদের যোগসূত্র রয়েছে। অভিযোগ আছে, এই কোম্পানিগুলোকে ব্যবহার করে বিদেশে অথর্পাচার করা হয়েছে এবং বিদেশে নানা সম্পদ কেনা হয়েছে। আলোচনায় ছিল, লন্ডনে কেনা এই বিলাসবহুল ফ্ল্যাটগুলোও। শেষতক সেই ফ্ল্যাটের কারণেই কারাদÐ হলো নওয়াজ ও তার মেয়ের।

আদালতের রায়ে বলা হয়েছে, ফ্ল্যাট কেনার অথের্র বৈধ উৎস দেখাতে ব্যথর্ হয়েছেন নওয়াজ। আয়বহিভ‚র্ত সম্পদ অজের্নর দায়ে তাকে ১০ বছরের কারাদÐ দিয়েছে আদালত। এ ছাড়া এনএবিকে অসহযোগিতা করার দায়ে দেয়া হয়েছে একবছরের কারাদÐ। তবে দুটি সাজা একই সঙ্গে চলবে। তাই নওয়াজকে ১০ বছর কারাগারে থাকতে হবে।

অন্যদিকে অবৈধ কমর্কাÐে উৎসাহ দেয়ার কারণে সাজা পেয়েছেন নওয়াজ কন্যা মরিয়ম। এ জন্য তাকে দেয়া হয়েছে ৭ বছরের কারাদÐ। আবার এনএবিকে অসহযোগিতা করার দায়ে দেয়া হয়েছে একবছরের কারাদÐ। তবে দুটি সাজা একই সঙ্গে চলায় মরিয়মকে ৭ বছর কারাগারে থাকতে হবে। আর তার স্বামী ক্যাপ্টেন সফদারকে একবছরের কারাদÐ দেয়া হয়েছে এনএবিকে অসহযোগিতা করার দায়ে। 

ভারতীয় সংবাদমাধ্যম এনডিটিভির খবরে বলা হয়েছে, দুনীির্তর অভিযোগে নওয়াজ শরিফের বিরুদ্ধে মোট চারটি মামলা হয়েছে। শুক্রবার যে মামলাটির রায় হয়েছে, তা এগুলোরই একটি। এই মামলার প্রায় শতাধিক শুনানিতে অংশ নিতে হয়েছিল নওয়াজ ও তার মেয়েকে। লন্ডনে বসে সরাসরি মামলার রায় শোনার কথা তাদের। নওয়াজের দুই ছেলে-হাসান ও হুসেইনেও সেখানে আছেন। তবে ক্যাপ্টেন সফদার পাকিস্তানে থাকলেও আদালতে হাজির হননি।

পানামা পেপারস কেলেঙ্কারিতে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী পদ থেকে সরে যেতে হয়েছিল নওয়াজ শরিফকে। দেশের সবোর্চ্চ আদালত তাকে অযোগ্য ঘোষণা করেছিল। আদালত তাকে রাষ্ট্রীয় যে কোনো পদে আজীবন নিষিদ্ধ ঘোষণা করেন। পরে আদালতের রায়ে দলীয় প্রধানের পদও ছাড়তে হয় নওয়াজকে।

No comments