Breaking News

‘প্রধানমন্ত্রীর জন্য রাজপথে লড়াই করবে বেফাক’ || RIGHTBD


RIGHTBD- 
কওমি মাদ্রাসাগুলোর দাওরায়ে হাদিসের (তাকমিল) সনদকে মাস্টার্স বারডিগ্রির (ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি) সমমানের স্বীকৃতি দেওয়ায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে অভিনন্দন জানিয়েছে কওমি মাদরাসা শিক্ষা বোর্ড ‘বেফাকুল মাদারিসিল আরাবিয়া বাংলাদেশ (বেফাক)।
বৃহস্পতিবার আসরের নামাজের পর রাজধানী ঢাকার জাতীয় মসজিদ বায়তুল মুকাররম উত্তর গেট থেকে বাংলাদেশ কওমি মাদারাসা শিক্ষা বোর্ড বেফাকের শুকরিয়া মিছিলে বেফাক নেতারা এ অভিনন্দন জানান। এসময় প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে যেকোনো ষড়যন্ত্র বা চক্রান্ত হলে রাজপথে লড়াই করার ঘোষণাও দিয়েছে বেফাক।
বেফাকের নেতারা বলেন, ‘ব্রিটিশ আমল ও পাকিস্তান আমলে এবং বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পরও যত সরকার এসেছে, সবার কাছেই দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে। কিন্তু কেউ আমাদের কথা শোনেনি। বাংলাদেশের স্থপতি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের কন্যা শেখ হাসিনা লাখ লাখ কওমি শিক্ষার্থীদের প্রাণের দাবি মেনে নিয়ে দাওরায়ে হাদিসকে মাস্টার্সের সমমান দিয়েছেন। এ জন্য তার বিরুদ্ধে যদি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক ষড়যন্ত্র হয়, তাহলে লাখ লাখ তৌহিদি জনতা শেখ হাসিনার জন্য রাজপথে লড়াই করবে।’
বেফাকের সিনিয়র সহ-সভাপতি আশরাফ আলীর সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য দেন বেফাকের মহাসচিব মাওলানা আব্দুল কুদ্দুস, বেফাকের কেন্দ্রীয় নেতা মুফতি নুরুল আমীন, মাওলানা জুবায়ের আহমেদ চৌধুরী, মুফতি ফয়জুল্লাহ, মাওলানা মোসলেহ উদ্দীন গাজী, মাওলানা আবুল কাসেম, মাওলানা আলতাফ হোসেন ও মাওলানা আবুল হাসনাত আমিনী।
মুফতি ফয়জুল্লাহ বলেন, দেশ ও দশ যারা দেশকে ভালোবাসে তারা সতর্ক থাকতে হবে কারণ এ সনদের স্বীকৃতি নিয়ে ষড়যন্ত্র চলছে। তাই তারা যেনো কেউ কওমির ক্ষতি করতে না পারে তাই সবসময় সতর্ক অবস্থানে থাকতে হবে।
তিনি আরো বলেন, কওমি মাদরাসার স্বীকৃতি নিয়ে যদি কোনো ষড়যন্ত্র হয় তাহলে বাংলার ধর্মপ্রাণ মুসলমান মাঠে নেমে আসবে।
উল্লেখ্য,  বুধবার (১৯ সেপ্টেম্বর) ‘কওমি মাদরাসা সমূহের দাওরায়ে হাদিস (তাকমীল)-এর সনদকে আল হাইআতুল উলয়া লিল জামিয়াতিল কওমিয়া বাংলাদেশ’ এর অধীনে মাস্টার্স ডিগ্রি (ইসলামিক স্টাডিজ ও আরবি) সমমান প্রদান বিল ২০১৮’ জাতীয় সংসদে পাস হয়।

No comments